নির্বাচন নিয়ে নয়া পল্টনের সহিংসতা অব্যাহত রেখেছে বিএনপি : ওবায়দুল কাদের

SHARE

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে যে সহিংসতা শুরু করেছিল এখনও তারা তা অব্যাহত রেখেছে। তিনি বলেন, ‘নেতিবাচক রাজনীতির জন্য দিনে দিনে বিএনপি সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। নয়াপল্টনে তারা সহিংসতা শুরু করেছে। এখনও তা তারা অব্যাহত রেখেছে।’
তিনি আজ দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ের বর্ধিত ভবনে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির উদ্যোগে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনী কার্যক্রমের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এইচ টি ইমামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি। কাদের বলেন, নোয়াখালীতে যুবলীগ নেতা ও ফরিদপুরে আওয়ামী লীগ কর্মী হত্যা করে বিএনপিকে কানাডার আদালতে সন্ত্রাসী দল হিসেবে দেয়া রায়ের যথার্থতা প্রমাণ করল। নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি-জামায়াত সহিংসতা ও নাশকতা শুরু করেছে। তারা মঙ্গলবার আমাদের দু’নেতাকে হত্যা করেছে।
তিনি বলেন, বিএনপি গণভাটাকে গণজোয়ার হিসেবে অপ্রচার চালাচ্ছে। জনগণের কোন সাড়া না পেয়ে তারা সহিংসতা ও মিথ্যাচার শুরু করেছে। তিনি বলেন, মনোনয়ন বানিজ্য নিয়ে বিএনপির নয়াপল্টন ও গুলশান অফিসে তালা, মির্জা ফখরুল ইসলামের বিরুদ্ধে মিছিল হয়েছে।
সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, নির্বাচন শতভাগ সুষ্ঠু হবে।এ নির্বাচনে বিএনপি যে মুসলিম লীগের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে তা প্রমাণ হবে। তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মত আমরা কোন দল কত আসন পাবে তা বলতে চাই না। তবে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ২০০৮ সালের নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ ৩০ টি আসন পাবে বলে মন্তব্য করেছিলেন। কিন্ত ফলাফলে দেখা গেছে, বিএনপিই ২৮ আসন পেয়েছে। নির্বাচনে কোন দল কত আসন পাবে তা দেশের জনগন জানিয়ে দেবে। বিএনপি শুধু নির্বাচনে থাকুক। তারা নির্বাচনে থাকলে আমরা খুশি।
বিএনপির নেতাদের উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, আপনারা সহিংসতার পথ ছেড়ে শান্তিপূর্ণ পথে ফিরে আসুন। নিজেরা সহিংসতা করে আওয়ামী লীগের ওপর দোষ দেবেন না। তিনি আরো বলেন, ঢাকাস্থ পাকিস্তান দূতাবাসে মির্জা ফখরুলের আনাগোনা, যুক্তরাজ্যের লন্ডনে গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের সঙ্গে বিএনপি নেতা তারেক রহমানের বৈঠক কিসের ইংগিত। বিএনপির দেশকে পাকিস্তান বানানোর ষড়যন্ত্র আর সফল হতে দেবে না।