ইউটিউবে সর্বোচ্চ আয় ৭ বছরের শিশুর

SHARE

ঢাকা: বাচ্চাদের খেলনার ভিডিও বানিয়ে তা নিজের ইউটিউব চ্যানেলে পোস্ট করে বিশ্বের সর্বোচ্চ উপার্জনকারী হয়ে গেছে এবার মাত্র সাত বছরের একটি খুদে শিশু। রায়ান নামের ওই শিশু ২০১৭ সালের জুন থেকে ১৮’র মে পর্যন্ত শীর্ষ তালিকার সব প্রাপ্তবয়স্কদের টপকিয়ে ইউটিউব থেকে আয় করেছে ২২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা তার গত বছরের উপার্জনেরই প্রায় দ্বিগুণ।

প্রতিবছরেরই শেষের দিকে এসে ইউটিউব থেকে উপার্জনকারী সবচেয়ে শীর্ষ ১০ জনের তালিকা প্রকাশ করে জনপ্রিয় মার্কিন বাণিজ্যিক ম্যাগাজিন ফোর্বস। আর নির্ভরযোগ্য এ প্রতিষ্ঠানটির এবারের তালিকায় সবার শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছে রায়ানের ইউটিউব চ্যানেল ‘রায়ান টয়েসরিভিউ (Ryan ToysReview)’।

গত বছর ফোর্বসের তালিকায় রায়ানের চ্যানেলটি ছিল আট নম্বর অবস্থানে। সেসময় এর অর্ধেক উপার্জন ছিল তার। মাত্র ১২ মাসে কী করে রায়ান ওই তালিকায় থাকা সব প্রাপ্তবয়স্কদের টপকিয়ে ওপরে উঠে গেছে তা নিয়ে গোটা প্রযুক্তি দুনিয়া আজ হতবাক!

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, ‘রায়ান টয়েসরিভিউ’ চ্যানেলটি বানানো হয়েছিল ২০১৫ সালের মার্চে। তার বাবা-মা তাকে এ চ্যানেলটি বানিয়ে দিয়েছিলেন। এখন চ্যানেলটিতে ১৭ দশমিক ৩ মিলিয়ন ফলোয়ার জড়ো হয়েছেন। আর এতে আপলোড করা ভিডিওগুলো এখন পর্যন্ত প্রায় ২৬ বিলিয়ন ভিউ হয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে ফোর্বসেও।

এ বিষয়ে ফোর্বস বলছে, এই চ্যানেলটিতে বেশির ভাগ দিনই ভিডিও আপলোড করা হয়। এছাড়া ওই চ্যানেলে রোববার (০২ ডিসেম্বর) পোস্ট করা একটি ডিমের ভিডিও ইতোমধ্যেই এক মিলিয়নেরও বেশি ভিউ হয়ে গেছে। যা অনেকাংশেই দুষ্প্রাপ্য বলছেন সমালোচকরা।

ফোর্বস এও বলছে, এই তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ‘জেক পুল (Jake Paul)’। এ বছর এর উপার্জন ২১ দশমিক ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর তৃতীয় স্থানে রয়েছে ‘দুদে পারফেক্ট (Dude Perfect)। এর উপার্জন ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।রায়ান, ছবি: সংগৃহীতসংবাদমাধ্যম রায়ানকে জিজ্ঞেস করেছিল, তার ভিডিও শিশুরা এতো পছন্দ করে দেখে কেনো? এর উত্তরে বর্তমানে আট বছর বয়সের রায়ান জানিয়েছে, শিশুরা তার ভিডিও পছন্দ করার কারণ সে বিনোদনমূলক এবং ফানি ভিডিও তৈরি করে।

এদিকে, এ চ্যানেলটিতে যেসব খেলনার ভিডিও পোস্ট বা ভিউ হচ্ছে, সে খেলনাগুলো দ্রুতই বিক্রি হয়ে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

এছাড়া এ তালিকায় চার নম্বরে রয়েছে- DanTDM, যার উপার্জন ১৮ দশমিক ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর পাঁচে- Jeffree Star, যার উপার্জন ১৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

১৭ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার উপার্জন করে ইউটিউব চ্যানেল Markiplier ফোর্বসের তালিকার ছয়ে অবস্থান করছে। ১৭ মিলিয়ন ডলার আয় করে সাতে আছে Vanoss Gaming.

আট নম্বরে অবস্থান করছে Jacksepticeye, যার আয় ১৬ মিলিয়ন ডলার।

নয় নম্বর চ্যানেল PewDiePie. এর বছরে আয় ১৫ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার। আর ১০ নম্বরে Logan Paul. চ্যানেলটির আয় ১৪ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৪, ২০১৮