যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের পাল্টা হুমকি আরও ২২০ বিলিয়ন ডলারের চীনা পণ্যে ট্রাম্পের শুল্কারোপ

SHARE

প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের চীনা পণ্য আমদানির উপর শুল্ক আরোপের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব পণ্যের মধ্যে হাতব্যাগ, চাল ও টেক্সটাইল পণ্য থাকতে পারে। তবে স্মার্ট ঘড়ি ও হাই চেয়ারের মতো পণ্যের ওপর শুল্কারোপ করা হবে, এমন ধারণা থাকলেও এসব পণ্য ছাড় পেয়েছে। চীনও প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতির সমালোচনা করেন। এরপর ৫০ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ চীনা পণ্যের উপর শুল্ক আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। তার প্রতিক্রিয়ায় চীনও ৫০ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের মার্কিন পণ্যের উপর শুল্ক ধার্য করেছিল। এরপর সম্পর্ক উন্নত করতে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের প্রতিনিধি দলের মধ্যে কয়েক দফা আলোচনা হয়। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। ফলে সোমবার আবারও নতুন করে শুল্ক আরোপের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একটি হুমকিও জুড়ে দেন। চীন যদি এবারও পাল্টা ব্যবস্থা নেয়, তাহলে তৃতীয় দফা শুল্ক ধার্যের হুমকি দেন তিনি এবং তার পরিমাণ ২৬৭ বিলিয়ন ডলার। নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে চীনা পণ্যের উপর ১০ শতাংশ শুল্ক কার্যকর হবে। এরপর জানুয়ারির ১ তারিখ থেকে সেটা বেড়ে হবে ২৫ শতাংশ। তবে ট্রাম্পের হুমকিতে কাজ হবে বলে মনে হচ্ছে না। কারণ, গতকালই চীন ঘোষণা দিয়েছে, তারা পাল্টা জবাব দেবে। এর আগে শুল্ক আরোপের জন্য ৬০ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের মার্কিন পণ্যের একটি তালিকা তৈরি করেছিল চীন। সেই পণ্যগুলোর উপরই চীন শুল্ক বসাতে পারে।

প্রতিক্রিয়া : নতুন করে চীনা পণ্যের উপর শুল্ক বসানোয় দুই দেশের মধ্যে যে আলোচনা চলছিল তার পরিবেশ ‘বিষাক্ত’ হয়ে উঠবে বলে মন্তব্য করেছেন চীনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। দেশটির সিকিউরিটিজ রেগুলেটর সংস্থার ভাইস চেয়ারম্যান ফাঙ চিঙ্ঘাই বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একজন হার্ড-হিটিং ব্যবসায়ী। তিনি চীনের উপর চাপ প্রয়োগ করতে চান, যেন আলোচনার সময় তিনি সুবিধা পান। কিন্তু আমার মনে হয়, চীনের সঙ্গে এই ধরনের কৌশল কাজ করবে না।’ এবার আরও শুল্ক বসানোর ঘোষণা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র আমদানিকৃত মোট চীনা পণ্যের প্রায় অর্ধেককে নতুন মাশুলের আওতায় নিয়ে এল।